ব্রেকিং নিউজঃ
 
Wed, 20 Sep, 2017

 

 

 

 

     
 

থমকে গেছে কামারপুকুর আ’লীগের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল

বাংলাদেশ বার্তা ২৪.কম/ সাইফুল ইসলাম পলাশ/নীলফামারী/ ২৩ নভেম্বর/ সৈয়দপুর উপজেলা কামারপুকুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কাউন্সিল জমে উঠলেও শেষে থমকে গেছে। কাউন্সিলের দুটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। দুটি প্যানেলে ব্যস্ত হয়ে পড়েন সমর্থন আদায়ে। এতে করে দলের নেতা কর্মীদের মধ্যে চাঙ্গা ভাব বিরাজ

করে। কিন' হঠাৎ কাউন্সিল স'গিত হওয়ায় নেতা কর্মীরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। ইতো মধ্যে দুটি প্যানেল গভীর রাত পর্যন- প্রচার প্রচারণা পাল্টাপাল্টি সভাযাত্রা ওয়ার্ড সভা কাউন্সিল টোকেন বিতরণ ও একাধিক বার নৈশ ভোজের আয়োজন করে। চলতি মাসের শেষের দিকে এ কাউন্সিল হওয়ার কথা ছিল। দীর্ঘদিন পুরাতন কমিটি দিয়ে জোড়াতালী ভাবে দলের কার্যক্রম পরিচালনা হয়ে আসছিল। কাউন্সিল হবে জেনে নেতা কর্মীরদের মধ্যে আগ্রহ বাড়ে কাউন্সিল ঘিরে। দলীয় কার্যালয় ও ইউনিয়ন পরিষদ দলীয় নেতা কর্মীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে। কাউন্সিল কে ঘিরে যে ভাবে প্রচারণা চলে তা দেখে মনে কাউন্সিল নয় যেন উপজেলা বা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। প্যানেল দুটির মধ্যে সরকার-জোতদার প্যানেল ও বাবু-জিকো প্যানেল নামে প্রচারণা অব্যাহত রেখেছে। সরকার জোতদার প্যানেলের সভাপতি পদে উপজেলা প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ও কামারপুকুর ৬ নং ওয়ার্ডের সদস্য আনোয়ার হোসেন সরকার। এই প্যানেলের সাধারণ সম্পাদক রইচ উদ্দিন জোতদার মতি তিনি বর্তমান ইউনিয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক। অপর দিকে বাবু-জিকো প্যানেলের সভাপতি পদে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আহসান-উল হক বাবু ও এ প্যানেলের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান কামারপুকুকর ইউ,পি চেয়ারম্যান জিকো আহমেদ। বর্তমান সভাপতি রফিকুল ইসলাম সোনার তিনি সত্যতার সহিত তার দায়-দায়িত্ব পালন নতুন মুখের আশায় প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেন। কামারপুকুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দলে যখন দ্বন্দ টিআর, কাবিখা, টন, রিলিফ স্লীপ ও ৪০ দিনের কর্মসূচি নিয়ে দলের ভিতরে মারামারি তখন নেতৃত্ব দেওয়ার লোক ছিলো না। ওই সময় সাধারণ সম্পাদক অদৃশ্য হয়ে যায়। তখন দলে এগিয়ে এসে হাল ধরেন কামারপুকুর ইউ,পি চেয়ারম্যান জিকো আহমেদ। কামারপুকুরে মিছিল, মিটিং দলীয় কার্যালয়ে মিলাদ মাহফিল, ১৫ আগষ্ট পালন সহ দলের প্রতিটি অনুষ্ঠানে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন তিনি। তিনি দলকে করেছেন সুসংঘটিত এজন্য নিজের প্রচুর অর্থ ব্যয় করেছেন দলীয় কর্মকান্ডে। দলের নেতা কর্মীদের আনন্দ দিতে নিয়ে গিয়েছেন ভিন্ন জগতের পিকনিক স্পর্টে। বর্তমান দলের হাল ধরেছেন তিনি। সেই সাথে দলের নেতা কর্মীদের মন জয় করেছেন। জিকোর পরিবার আওয়ামী লীগ পরিবার এর সুবাদে ছাত্র রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। ১৪ বছর ধরে দলের সঙ্গে জড়িয়ে আছেন। অদ্যবধি দলের মুখ্য ভূমিকা পালন করে আসছেন। অথচ অপর প্যানেলটি প্রচার করছেন তারা নব্য আওয়ামী লীগ ও নতুন সদস্য। যখন মিছিলের নেতৃত্ব দেন নিজের অর্থ ব্যয় করেন দলের প্রতিটি দিবস পালন করেন তখন কিন' ওই প্যানেলের কাউকে দেখা যায়নি মিছিল সহ দলীয় অনুষ্ঠানে। তখন কিন্তুবলা হয়নি নতুন সদস্য বা পুরাতন সদস্য। বলা হয়নি তোমরা আওয়ামী লীগের নও। তারা চেয়েছে অর্থ ব্যয় করে অনুষ্ঠান করবে জিকো। ফায়দা লুটাবে তারা কিন' সে আশা সফল হয়নি। কারণ মানুষ অনেক সচেতন। সাধারণ মানুষ জানে সুখে যারা দুঃখেও তারা। এজন্য তাদের খপ্পরে পড়েনি তারা। নেতা কর্মীদের বক্তব্য যে সময় দিতে পারবে দলকে চাঙ্গা করতে পারবে, অর্থ ব্যয় করতে পারবে, সেই লোকের দরকার। সে মতে জিকো সবার উপরে তাই নেতা কর্মীরা বেছে নিয়েছে। সভাপতি প্রার্থী আহসান-উল হক বাবু যার পরিবারটি আওয়ামী পরিবার হিসেবে পরিচিত। তাদের শিক্ষা, ব্যবসা, অর্থ সম্পদ কোন কিছু কমতি নেই। তাই দলের সাথে থাকলেও পদ পদবীতে আসেননি। শেষ মুহুর্তে ইচ্ছা জাগলো বাবুর যে দলের জন্য কিছু করার। দলের জন্য কিছু করতে হলে দলে ও দায়িত্বে আসতে হবে। তাই তিনি এবার সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন। তাদের পরিবারকে চেনে না এরকম লোক কম আছে। অথচ বলা হচ্ছে তাদের নতুন আওয়ামী লীগ। যদি দলের বা দেশের জন্য কিছু করতে ইচ্ছা করে তখন আর নতুন-পুরাতনের প্রশ্নেই আসেন। আসলে বাবু জিকোর জন প্রিয়তা দেখে অপর প্যানেলের সহ্য হচ্ছে না। তারা শুধু তাদের সমালোচনা করছে। যারা সমালোচনা করে তাদের বাড়িতে নমপো জলে। সুত্রে জানা যায় একটি মহল কাউন্সিল ও তাদের প্যানেল বানচালের চেষ্টা করছে। এ মুহুর্তে কাউন্সিল হলে বাবু জিকোর জয়টা শুধু সময়ের ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে। বাবু জিকো প্যানেলের মধ্যে জিকোর মাঠ দখলে থাকায় ও বর্তমান কমিটির ৮০ ভাগ সদস্য সমর্থন থাকায় ওই প্যানেলটির জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা শত ভাগ। অপর প্যানেলটি দলে ও কর্মকান্ডে সক্রিয় না থাকায় তারা ছিটকে পড়েছে। বর্তমানে কাউন্সিল থমকে যাওয়ায় নেতা কর্মীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। দলীয় সূত্রে জানা যায় পৌর নির্বাচনের আগে কাউন্সিল হওয়ার সম্ভাবনা নেই। নির্বাচনের পরে কাউন্সিল হবে।