ব্রেকিং নিউজঃ
 
Sat, 23 Sep, 2017

 

 

 

 

     
 

চাটমোহরে পুলিশ ফাঁড়ির অদূরেই ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার

বাংলাদেশ বার্তা ২৪.কম/ পবিত্র তালুকদার/ চাটমোহর, পাবনা/ ২৩ জুলাই/ পাবনার চাটমোহরে ফৈলজানা ইউনিয়নের শরৎগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির অদুরেই ফলিয়া গ্রামের কাঠগড়া ব্রীজের সাথে বুধবার সকালে শফিকুল ইসলাম মিঠু (৩৫) নামে পাবনা সদরের এক ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে পাবনা সদর থানার চক-ছাতিয়ান

গ্রামের আলহাজ্ব মৃত আবুল কাশেমের ছেলে। পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে পাবনা মর্গে প্রেরন করেছে। লাশটির কপালে আঘাতের চিহ্ন ছিল। এলাকাবাসী জানায়,সকাল ৬টার দিকে স্থানীয় লোকজন রাস্তা দিয়ে যাবার সময় কাঠগড়া ব্রীজের সাথে ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ সকাল সাড়ে ৮টার দিকে গলায় রশি পেঁচানো ঝুলন্ত অবস্থায় মিঠুর লাশ উদ্ধার করে। শরৎগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (এসআই) রেজাউল করিম জানান, স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে খবর পেয়ে লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। লাশটি ময়না তদন্তের জন্য পাবনা মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। লাশের গায়ে কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। থানায় মামলা হয়েছে। এটি হত্যা না আত্নহত্যা এই বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ময়না তদন্ত ছাড়া কোন কিছু বলা সম্ভব নয়। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টা পর্যন্ত ওই রাস্তায় পুলিশের টহল ছিল বলেও জানান এসআই রেজাউল। নিহত শফিকুল ইসলাম মিঠুর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকেলে সে বাড়ি থেকে শহরের উদ্দেশে বের হয়। রাত ১০টার পর থেকে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যাওয়ায় এবং রাতে বাড়ি না ফেরায় অনেক খোঁজাখুঁজি করা হয়। বুধবার সকালে চাটমোহর থানা পুলিশ মিঠুর বাড়িতে খবর দিলে থানায় গিয়ে লাশটি মিঠুর বলে সনাক্ত করেন তার ছোট ভাই শরিফুল ইসলাম সিরন। মিঠুর পরিবারের দাবি এটা আত্মহত্যা নয়। এটা পূর্বপরিকল্পিত হত্যা। তাকে কেউ অন্যত্র হত্যা করে লাশ ব্রিজটির সাথে ঝুলিয়ে রেখে গেছে। নিহত শফিকুল ইসলাম মিঠুর ভাই শরিফুল ইসলাম সিরন থানায় অজ্ঞাতদের আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন। এ বিষয়ে চাটমোহর থানার ওসি(তদন্ত) মোঃ মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, প্রাথমিকভাবে লাশটি দেখে ধারনা করা হচ্ছে তাকে কেউ মেরে লাশটি ব্রিজের সাথে ঝুলিয়ে রেখে গেছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করেছে। ময়না তদন্তের পরেই আসল সত্য উদঘাটন হবে বলে জানান তিনি।