ব্রেকিং নিউজঃ
 
Tue, 21 Nov, 2017

 

 

 

 

     
 

চলছে ফাঁসি কার্যকরের শেষ প্রস্তুতি

বাংলাদেশ বার্তা ২৪.কম/ যশোর/ ৭ জানুযারি/ মুক্তিযুদ্ধেরঅন্যতম সংগঠক জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা কাজী আরেফ আহমেদ হত্যা মামলায় ফাঁসিরদণ্ডপ্রাপ্ত তিন আসামির রায় কার্যকর করার শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি চলছেযশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে। নির্বিঘ্নে ফাঁসি কার্যকর করার জন্য কারা

ও জেলাপ্রশাসন পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিয়েছে। এজন্য কারাগার এলাকায় নেয়া হয়েছে কড়ানিরাপত্তা। ফাঁসি কার্যকর করার জন্য ইতিমধ্যে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকেদুজন জল্লাদকে যশোরে আনা হয়েছে। তারা হলেন, তানভির হাসান রাজু ও হযরত আলী। কারাগারসূত্রে জানা গেছে, আজ রাত ১১টা ১ মিনিটে ২ জনের ও ১১টার ৪৫ মিনিটে একজনেরফাঁসি কার্যকর করা হবে। প্রথম দফায় আনোয়ার হোসেন ও রাশেদুল ইসলাম ঝন্টু এবংশেষে সাফায়েত হোসেন হাবিবের ফাঁসি কার্যকর করা হবে। আনুষ্ঠানিকতা শেষেতাদের স্বজনদের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হবে। ইতিমধ্যে দণ্ডপ্রাপ্তদের সঙ্গেতাদের স্বজনরা শেষবারের মত দেখা করেছেন।আদালতও কারাগার সূত্র জানায়, ১৯৯৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে কুষ্টিয়ারদৌলতপুর উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের কালিদাসপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠেসন্ত্রাসবিরোধী এক জনসভায় চরমপন্থি সন্ত্রাসীদের ব্রাশফায়ারে নির্মমভাবেনিহত হন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক জাসদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কাজী আরেফআহমেদ, কুষ্টিয়া জেলা জাসদের সভাপতি লোকমান হোসেন, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড.ইয়াকুব আলী, স্থানীয় জাসদ নেতা ইসরাইল হোসেন ও সমশের মণ্ডল। এ হত্যাকাণ্ডেরঘটনায় সে সময় দেশজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় ও আলোড়ন সৃষ্টি হয়। হত্যাকাণ্ডের ৫বছর পর ২০০৪ সালের ৩০ আগস্ট কুষ্টিয়া জেলা জজ আদালত এ হত্যা মামলায় ১০ জনেরফাঁসি ও ১২ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেন। আসামিরা হাইকোর্টে আপিলকরলে ২০০৮ সালের ৩১ আগস্ট আদালত ফাঁসির এক আসামি ও যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত১০ জনের সাজা মওকুফ করে রায় দেন। পরে সরকার পক্ষ (বাদী) সুপ্রিম কোর্টেআপিল করলে আদালত ২০১১ সালের ৭ আগস্ট হাইকোর্টের দেয়া রায় বহাল রেখে রায়দেন। পরে ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত আসামিরা সুপ্রিমকোর্টে রিভিউ করলে তাও২০১৪ সালের ১৯ নভেম্বর খারিজ করে দেন সুপ্রিমকোর্ট। কারাগার সূত্র মতে, হত্যাকাণ্ডে জড়িত ৯ জন ফাঁসির আসামির মধ্যে মান্নান মোল্লা, বাখের, রওশন, জাহানসহ ৫ জন পলাতক রয়েছে। এদিকে কারাগারে বন্দি কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলাররাজনগর গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে সাফায়েত হোসেন, কুর্শা গ্রামের উম্মতমণ্ডলের ছেলে আনোয়ার হোসেন ও সিরাজ ওরফে আবুল হোসেনের ছেলে রাশেদুল ইসলামওরফে আকবরকে আজ রাতে ফাঁসি দেয়া হবে।