ব্রেকিং নিউজঃ
 
Thu, 18 Jan, 2018

 

 

 

 

     
 

আজ শিবচর উপজেলা মুক্ত দিবস

বাংলাদেশ বার্তা ২৪.কম/ মাদারীপুর/ ২৫ নভেম্বর/ আজ২৫ শে নভেম্বর, মাদারীপুরের শিবচর উপজেলা মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনেএক রক্তক্ষয়ী সম্মুখ যুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধারা হানাদার বাহিনীকে পরাজিতকরে শিবচরকে হানাদার মুক্ত করেছিল। এ যুদ্ধে চারজন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদহন। এদের মধ্যে ফরিদপুরের ভাঙ্গা ও

সদরপুর উপজেলার দুই কমান্ডার নিহত হন। জানা যায়, ১৯৭১ সালের মে মাসে দুদফা হানাদার বাহিনী স্থানীয় রাজাকারদোসরদের নিয়ে শিবচরের ৪০জন নিরীহ নারী পুরুষকে হত্যাসহ ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ করে ও স্থানীয় থানায় ঘাটি গাড়ে। সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়েমুক্তিযোদ্ধারা শিবচর বাজারে অবস্থিত হানাদার বাহিনীর ক্যাম্প গুড়িয়ে দেয়।এরপর থেকেই হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা শিবচর থানায় অবস্থান নিয়ে খুন, ধর্ষণ, লুট, জ্বালানো-পোড়ানো বাড়িয়ে দেয়।২৪ নভেম্বর রাত ৩টায় এরিয়া কমান্ডার মো. মোসলেমউদ্দিন খানের নেতৃত্বেস্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাসহ ভাঙ্গা ও সদরপুর থানার মুক্তিযোদ্ধারা হানাদারবাহিনী ও রাজাকারদের আশ্রয়স্থল শিবচর থানা হানাদার মুক্ত অপারেশন শুরুকরেন। চারটি গ্রুপে ভাগ হয়ে ১৭৫ জন মুক্তিযোদ্ধা হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধেসম্মুখ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। প্রায় ১৬ ঘণ্টা স্থায়ী যুদ্ধ ২৫ নভেম্বরসন্ধ্যায় হানাদার ও রাজাকার বাহিনীর আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে শেষ হয়। সম্মুখএ যুদ্ধে শিবচরের আ. ছালাম, ভাঙ্গার মোশাররফ হোসেন, সদরপুরের দেলোয়ারহোসেন ও সহযোগী ১১বছর বয়সের কিশোর ইস্কান্দারসহ চারজন বীর মুক্তিযোদ্ধাশহীদ হন। আরো অনেকে গুরুতর আহত হন। যুদ্ধে ১৮ জন ঘাতক হানাদার ও রাজাকারনিহত হয়। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার মো কামরুজ্জামান বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষণে বর্তমান সরকার শিবচরে স্মৃতিস্তম্ভ ওমুক্তিযোদ্ধাদের নামে সড়ক নামকরণ করেছে। এ ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, পার্ক নির্মাণাধীন রয়েছে। দিনটি উপলক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসুচি হাতে নেওয়াহয়েছে।

সংবাদ শিরোনাম