ব্রেকিং নিউজঃ
 
Thu, 18 Jan, 2018

 

 

 

 

     
 

খুনিদের পক্ষে সাফাই সাক্ষী গ্রহন না করার জন্য অনুরোধ

বি-বার্তা/ শাহআলী মোঃ পিন্টু খান/নারায়ণগঞ্জ/ ১২ মে/ নারায়ণগঞ্জের আলোচিত হত্যাকান্ডে আইনজীবী চন্দন সরকারসহ ৭ হত্যার প্রতিবাদ ও খুনীদের গ্রেপ্তারের দাবি পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০ টা

পর্যন্ত কর্মবিরতী সহ দুপুর ১২ টা থেকে ১ টা পর্যন্ত বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করছেন জেলা আইনজীবী সমিতির নেতারা। এ ছাড়া তদন্ত কমিটির সাথে দেখা করে মৌখিকভাবে খুনীদের পক্ষে কোন সাফাই সাক্ষী গ্রহন না করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নেতৃবৃন্দ। জেলা আইনজীবী সমিতির নেতারা আগামী ১৫ মে গণ শুনানীতে অংশ নিবেন বলে তদন্ত কমিটিকে জানিয়েছেন। জৈষ্ঠ আইনজীবী চন্দন সরকার ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম সহ সাতজনকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ অন্যান্যদের জড়িত থাকার অভিযোগ বিষয়ে তদন্তের অংশ হিসেবে নারায়ণগঞ্জে গণশুনানী শুরু হয়েছে। সোমবার সকাল ১০টা থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা সার্কিট হাউজে এ গণশুনানী শুরু হলেও বেলা ১১ টা পর্যন্ত কোন সাক্ষী সাক্ষ্য প্রদান করেনি। তবে সাক্ষী দিতে মাত্র একজন ব্যক্তি সেখানে উপসি'ত হয়েছেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন জানান, সকালে আমরা কর্মবিরতী ও দুপুরে মানববন্ধন পালন করেছি। এ ছাড়াও তদন- কমিটি সাথে দেখা করে খুনীদের পক্ষে সাফাই সাক্ষী গ্রহন না করার মৌখিকভাবে অনুরোধ জানিয়েছি। উল্লেখ্য সুপ্রীম কোর্টর্র হাইকোর্ট বিভাগের স্যু-মোটো ক্রিমিনাল রুল নম্বর ১৮৪০৩/১৪ মামলার গত ৫ মে তারিখের আদেশ মোতাবেক নারায়ণগঞ্জে প্যানেল মেয়র ও আইনজীবিসহ ৭ জনকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় র‌্যাব ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ অন্যদের জড়িত থাকার অভিযোগ বিষয়ে গত ৭ মে ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটির চেয়ারম্যান জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ শাহজাহান আলীর মোল্লার নেতৃত্বে ৭ সদস্যের ওই তদন্ত কমিটি বৃহস্পতিবার উদ্ধারস'ল ও ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন। কমিটির অপর সদস্যরা হলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের উপ সচিব আবদুল কাইয়ুম সরকার ও আবুল কাশেম মো: মহিউদ্দিন, আইন ও বিচার বিভাগ ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের উপ সচিব মোস্তাফিজুর রহমান ও মিজানুর রহমান খান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রনালয়ের উপসচিব শফিকুর রহমান ও সাঈদ মাহমুদ বেলাল হায়দার। গঠিত কমিটি তদন্তের মাধ্যমে খতিয়ে দেখবেন অপহরণের খবর পাওয়ার সাথে সাথে অপহৃতদের জীবিত উদ্ধারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কোন অবহেলা বা ইচ্ছাকৃত গাফিলতি ছিল কিনা তা নির্ণয় করবে। সেই সাথে কমিটি আগামী ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত কাজের অগ্রগতি সম্পর্কে বিজ্ঞ অ্যাটর্নি জেনারেলের মাধ্যমে হাইকোর্ট বিভাগে প্রতিবেদন দাখিল করবেন বলে জানা গেছে।

সংবাদ শিরোনাম